Breaking News

রামকৃষ্ণপুর কে.কে. আর. কে উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের মিলন মেলা!

আবদুল হক সরকার,হোমনা!!
হোমনা উপজেলার ঐতিহ্যবাহী রামকৃষ্ণপুর কেবল কৃষ্ণ রাজ কৃষ্ণ ( কে কে আর কে) উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি ১৯৮১ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের মিলন মেলা অনুষ্ঠিত হয়।
পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে আজ শনিবার সকাল ১১ টায় রামকৃষ্ণপুর কে কে আর কে উচ্চ বিদ্যালয় কম্পাউন্ডে এ মিলন মেলা অনুষ্ঠিত হয়।
অনণ্য৮১ ব্যাচের সমন্বয়ক গাজী আবদুর রহমান জানান, এসএসসি ৮১ ব্যাচের সবাইকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিলো। তাঁর আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে মিলন মেলায় অংশ নেয় প্রায় ৫০ এর অধিক প্রাক্তন শিক্ষার্থী।
প্রত্যেকই বয়সের ভারে অনেকই ক্লান্ত তার পরও দীর্ঘ ৪৪ বছর পর প্রাক্তন বন্ধুদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠে পুরো স্কুল কম্পাউন্ড। পুরনো বন্ধুদের কাছে পেয়ে তৈরী হয় আনন্দ আর আবেগঘন পরিবেশ। চলে পরিচিতিপর্ব, আড্ডা ও স্কুলের স্মৃতিচারণ।

দীর্ঘ ৪৪ বছর পর এই মিলন মেলায় এসে ১৯৮১ ব্যাচের শিক্ষার্থী গণ প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সচিব মো. মশিউর রহমান বলেন, অনেক বছর পর সকল বন্ধুদের দেখতে পেয়েছি। এ অনুভূতিটা আসলে মুখে প্রকাশ করার মত নয়। আমি সত্যি খুব আনন্দিত। বিভিন্ন স্থানে চাকুরি করার সুবাদে সময় করতে পারি নাই। তবে সবাইকে অনেক মিস করি। স্কুল জীবনের স্মৃতিচারন করে বলেন, শ্রদ্ধেয় ননী গোপাল স্যার যে টেনস ও ন্যারেশান পড়াতেন তা ভুলার মত নয়।

অনন্য ৮১ ব্যাচের ছাত্র ও চান্দের চর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আবুল কাশেম বলেন, সন্তোষ স্যার বাংলা পড়াতেন। পরীক্ষায় রচনা কমন পড়ে নাই। বানাইয়া রচনা লিখাতে আমাকে হাইস মার্ক দিয়েছিলেন। তিনি বলতেন রচনা মুখস্ত করলে কিসের রচনা। রচনা মানেই নতুন করে বানাইতে হবে।

অনণ্য ৮১ ব্যাচের ছাত্র মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, আমাদের সময় আমরা স্কুল শেষে সকল বন্ধু-বান্ধব মিলে দুষ্টামি করতাম। এখন নানান ব্যস্ততার মাঝে বন্ধুদের অনেকের সাথে দেখাও হয় না তাই এসব এখন স্মৃতি।

এছাড়া ৮১ ব্যাচের শিক্ষার্থী মো. আমির হোসেন বলেন, দীর্ঘ বছর পরে আমরা একসাথে মিলিত হয়ে সকল বন্ধুদের সাথে দেখা হল। মনে হচ্ছে আমরা ছাত্র জীবন ফিরে পাচ্ছি। তাই আমরা বড় পরিসরে প্রতিবছর এভাবে একত্রে মিলিত হতে চাই।

অনুষ্ঠানে বিদ্যালয়ের বতর্মান সহকারি প্রধান শিক্ষক মো. মনিরুল হক মমিন বিদ্যালয়ে একটি সরকারি ভবন নির্মান খুব জরুরী উল্লেখ করে সচিব মহোদয়ের দৃষ্টিআকর্ষণ করলে সচিব মো. মশিউর রহমান মহোদয় বলেন এই বিদ্যালয়টি সবচেয়ে পুরাতন অথচ এখানে কোন সরকারি ভবন নাই। তা বিশ্বাস করতে কষ্ট হচ্ছে। বর্তমান সংসদ সদস্য একজন শিক্ষাবান্ধব ব্যক্তি। তাঁর ডিউলেটার নিয়ে আবেদন করেন আমি আমার সাধ্যমত চেষ্টা করবো।
অনুষ্ঠানে ৮১ ব্যাচের শিক্ষার্থী ছাড়াও সন্তোস স্যার, বজেন্দ্র স্যার, মাওলানা ইসমাইল (ছোট হুজুর) স্যার,হোমনা প্রেস ক্লাবের সভাপতি আবদুল হক সরকার, সাংবাদিক সৈয়দ আনোয়ার ও আল আমিন শাহেদ উপস্থিত ছিলেন।
পরে সকলে রামকৃষ্ণপুর বাজারের মতিহার কিচেনে মধ্যাহৃভোজে মিলিত হন।

About Darpan News24

Check Also

হোমনায় ফয়সাল হত্যা মামলায় দু’জনকে মৃত্যুদন্ড!

হোমনা( কুমিল্লা) প্রতিনিধিঃ কুমিল্লার হোমনায় বোনের সাথে প্রেম করার কারনে বোনের প্রেমিক মো. ফয়সাল নামে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *